24 C
Kolkata
Monday, January 18, 2021
Home খবর করোনা থেকে বাঁচতে, বাইরে বেরলে কী কী মেনে চলবেনই

করোনা থেকে বাঁচতে, বাইরে বেরলে কী কী মেনে চলবেনই

প্রতিষেধক বা ওষুধের কোন খোঁজ নেই এখনোও পর্যন্ত । মাস্ক, সাবান এবং স্যানিটাইজার এখন একমাত্র বাঁচার উপায়। এই তিনটি বড় অস্ত্রের সাহায্যে কোভিড -19-কে পরাস্ত করার চেষ্টা করা হচ্ছে। পরামর্শদাতারা বলছেন যে এখন আমাদের এই সতর্কতাগুলি লকডাউনের সময় ঠিকঠাক পালণ করা উচিত। তবে এটি যথেষ্ট নয় আপনি যেমন লকডাউনে এই নিয়ম মানছেন তেমন লকডাউনটি উঠে যাওয়ার পরেও আমাদের সতর্ক থাকতে হবে । অবশ্যই কিছু নির্দিষ্ট নির্দেশিকা মেনে চলতে হবে প্রতিষেধক বা ওষুধের খোজ না পাওয়া পর্যন্ত প্রচুর পুরানো জীবনযাত্রা পরিবর্তন করতে হবে। মাস্ক-সাবান-স্যানিটাইজার রয়েছে, এতে আরও কিছু যুক্ত করতে হবে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, এবার বাহ্যিক খাবারগুলি এড়িয়ে চলা উচিত। সংক্রামক ব্যাধি বিশেষজ্ঞ দেবতানু লাহিড়ির মতে, “পতিষেধক বা ওষুধ না মেলা অবধি ঘরে তৈরি খাবার খাওয়া বুদ্ধিমানের কাজ। রান্না করা খাবারে ভাইরাসের অস্তিত্ব নেই, তবে খাবারটি কীভাবে প্যাক করা হয় বা কী কী পদার্থ দিয়ে প্যাকিং হচ্ছে তার উপর নির্ভর করে । তিনি যে রান্না করছেন বা প্যাকিং করছেন সে অনিচ্ছাকৃত ভাবে প্যাকিংয়ের সময় যে কোনও পদ্ধতিতে তার ফোঁটাগুলি খাবারের মধ্যে মিশ্রিত হয় কিনা তা এখনও অনেক প্রশ্ন থেকেই যায় । তাই এখনই এই সমস্ত খাবার থেকে দূরে থাকুন।

যখন আপনার কেনার জন্য বাহিরে বেরনো দরকার, তখন আপনি সেল ফোনটি ঘরে রেখে দিয়ে যান। যে ব্যক্তিদের অবশ্যই কর্মক্ষেত্রের কাজে লাগবে তাদের জন্য সেল ফোনটি ব্যাগের মধ্যে রাখুন। খুব দরকার না হলে ফোন বের করনার দরকার নেই। সংক্রমণটি ফোনের মধ্যে ছড়াতে পারে। আপনি বাসস্থান ফিরে আসার পরে, তুলোতে অ্যান্টিসেপটিক লোশন ভিজিয়ে ফোনটি মুছুন। স্যানিটাইজার ব্যবহার করে ফোন সাফ করাও সম্ভব। ঘরে এসে ফোনের কভার আলাদা করুন এবং সাবান দিয়ে ধুয়ে ফেলতে পারেন।image 3

বাজারের লাগেজ, কর্মক্ষেত্রের লাগেজগুলি সাবান জল দিয়ে মুছে ফেলতে পারেন,কীটনাশক মেশানো জল বা পটাশিয়াম পারম্যাঙ্গানেট মেশানো জলে তুলো ভিজিয়ে তা দিয়ে মুছে নিতে পারেন

আপনি যখন বাইরে বেরোনোর ​​জন্য গাড়ী ব্যবহার করেন, আপনাকে অবশ্যই সেই গাড়ীটি ধুয়ে ফেলতে হবে। জীবাণুনাশককে ঘন ঘন স্প্রে করা উচিত।image 5

এই মুহুর্তে কোনও গহনা রাখবেন না। অনেকের ঘড়ি, রিং এবং পাথরের আঙটি পরার অভ্যাস রয়েছে। কয়েকদিনের মধ্যে এই সমস্ত অভ্যাসগুলি দূরে রাখা আরও ভালো। বিশেষজ্ঞদের মতে ভাইরাস খুব দীর্ঘ সময়ের জন্য যে কোনও ধাতব বস্তুতে বেঁছে থাকে। তাই সংক্রমণটি রিং-পাথর থেকে ছড়িয়ে পড়তে পারে। এগুলি যদি হাতে থাকে তাহালে আপনার হাত ধোঁয়ায় কষ্ট হতে পারে।

নিয়মিত ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার ছাড়া অতিরিক্ত পরিমাণে মেকআপ না করা বর্তমানে ভালো। মেক-আপের রাসায়নিক অংশটি ত্বকের বায়ুর মধ্যে ভাসমান বিভিন্ন অণুগুলিকে আটকাতে পারে। সুতরাং আপনি অতিরিক্ত পরিমাণে মেক আপ না করলেই ভালো। সম্পূর্ণ বাধ্যতামূলক হলে সানস্ক্রিন প্রয়োগ করুন। তবুও, আপনি আপনার চোখ, মুখ এবং ঠোঁট পরিষ্কার বজায় রাখবেন। আপনাকে অবশ্যই আপনার হাতগুলি অবিচ্ছিন্নভাবে ধুয়ে ফেলতে হবে এবং একটি মুখোশ লাগানো উচিত।এই সময় নেল পালিশ পরা একে বারে উচিত নয় কারন এর মধ্যে সহজে করনা আটকাতে পারে।

আপনি ঘন ঘন বাড়ীর বাইরে বেরতে থাকলে ব্যাগের মধ্যে দুটি মাস্ক ভরে রাখুন। যদি মুখের মুখোশগুলি কোনও কারণে ভিজে যায় তবে বিপরীতটি সহায়ক হবে।image 6

আপনি যদি টাকা পয়সার লেনদেন করেন তাহালে অবশ্যই গ্লাভস রাখুন। গ্লাভস হাতে থাকলে নাক এবং মুখের স্পর্শের প্রবণতা তুলনামূলক হ্রাস করা যেতে পারে। এটি অন্য লোকের হাতের সাথে আপনার সরাসরি যোগাযোগকে হ্রাস করে।

বাসা থেকে বেরোনোর ​​সময় ফ্লাস্কে গরম জল বহন করার চেষ্টা করুন। বিশেষজ্ঞদের মতে, কোনও ছোঁয়া সংক্রমণ, একসাথে করোনার সাথে, অল্প পরিমাণে জ্বলন্ত জল সেবন করে কিছুটা হলেও প্রতিরোধ করা যেতে পারে।image 7

গরম হলেও মজা দিয়ে জুতা পরা অভ্যাস করতে হবে। আপনি যখন খুব দীর্ঘ সময় এসিতে থাকেন তাহালে সমস্যা হওয়া উচিত নয়। যদি অসুবিধা হয় তাহালে পাতলা সুতির মজা লাগান। বাড়িতে এসে আগে মজা ও জুতা দুয়ে নিন। রাস্তায় থুতু , কাশি সংক্রমণের উদ্রেক হতে পারে । জীবাণুগুলি খুব কমপক্ষে 3-6 ফুট দূরত্বে সংক্রামণ ছড়াতে পারে তাই পায়ের সব অংশ ঢেকে রাখুন।

মেডিসিন বিশেষজ্ঞ সৌত্রিক মুখোপাধ্যায়ের মতে, পুলিশকর্মী, সাংবাদিক, চিকিৎসক— যাঁরা এই মুহূর্তে সবচেয়ে বেশি বাইরে বেরচ্ছেন এবং লকডাউন উঠলেও যাঁদের গুরুত্ব এতটুকু কমবে না, তাঁরা এখনও প্রতি দিন বাড়ি ফিরে হালকা গরম জলে চুল ধুয়ে নিন। ড্রায়ার দিয়ে ভাল করে শুকিয়ে নিন চুল। তাতে ঠান্ডা লাগার হাত থেকে কিছুটা রক্ষা পাবেন। ঠান্ডা লাগার ভয়ে দু’বেলা চুল রোজ ধুতে না চাইলে অন্তত স্নানের সময়টা বদলে ফলেতে পারেন। সকালে গা ধুয়ে কাজে বেরলেন, বাড়ি ফিরে ভাল করে স্নান সারলেন, এমনও হতেই পারে।

মাথার চুলও পারলে ঢেকে রাখুন। এমন মন্তব্য করলেন মেডিসিন বিশেষজ্ঞ গৌতম বরাট। ড্রপলেট ছড়াতে পারে তিন থেকে ছ’ফুট। তাই ভিড় বাসে-ট্রেনে যাতায়াত শুরু হলে এই দূরত্ব কিছুতেই মেনে চলা যাবে না। এ দিকে কোনও কারণে চুলে হাত দিয়ে সেই হাতই ফের চোখে-মুখে যেতেই পারে। তাই ঝুঁকি না নিয়ে চুল ঢেকে রাখুন টুপি বা স্কার্ফে। বাড়ি ফিরে সেই টুপি বা স্কার্ফ কেচে নিন। তবে এতটা না মানতে পারলে কিন্তু সচেতন থাকতে হবে। চুলে হাত দিলেও হাত ধুয়ে নিতে হবে, বাড়ি ফিরে স্নান করতে পারলেও ভাল হয়।

Most Popular

TODAY'S TOP NEWS