35 C
Kolkata
Saturday, February 27, 2021
Home খবর খুশির খবর ৭৩ দিনের মধ্যে ভারতে আসছে প্রথম করোনার ভ্যাকসিন! সম্পূর্ণ বিনামূল্যে...

খুশির খবর ৭৩ দিনের মধ্যে ভারতে আসছে প্রথম করোনার ভ্যাকসিন! সম্পূর্ণ বিনামূল্যে হবে টিকাকরণ

অনেক অপেক্ষার পর দেশের প্রথম করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে বড় খবর সামনে এল। ভারতের বাজারে করোনার ভ্যাকসিন ৭৩ দিনের মধ্যে পাওয়া যাবে। এই ভ্যাকসিন সম্পর্কিত আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য হল জাতীয় টিকাদান কর্মসূচির আওতায় ভারত সরকার প্রতিটি ভারতীয়কে বিনামূল্যে করোনার ভ্যাকসিন দেবে। পুনের বায়োটেক সংস্থা সেরাম ইনস্টিটিউট অব ইন্ডিয়া এই ভ্যাকসিনটি (Covishield) তৈরি করছে।

একটি সর্বভারতীয় সংবাদপত্রের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউটের কর্মকর্তারা বলেছেন যে, ভারত সরকার সিরম ইনস্টিটিউটকে বিশেষ লাইসেন্স দিয়েছে। এর ফলে ভ্যাকসিন ট্রায়াল প্রোটোকলের প্রক্রিয়াটি খুবই দ্রুত গতিতে করা সম্ভব হবে। আশা করা যায় যে ৫৮ দিনের মধ্যে এই ভ্যাকসিনের পরীক্ষ শেষ হবে৷

ভ্যাকসিনের তৃতীয় পর্বের প্রথম ডোজ শনিবার,২২ অগাস্ট, দেওয়া হয়েছে৷ দ্বিতীয় ডোজটি প্রথম ডোজের থেকে ২৯ দিনের পরে দেওয়া যেতে পারে। ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজের ১৫ দিনের পর রিপোর্ট প্রকাশিত হবে। কোভিশিল্ড (Covishield)-র সব পরীক্ষা হয়ে যাওয়ার পরই বাজারে নিয়ে আসার পরিকল্পনা করা হচ্ছে।

▪️কোভিশিল্ড ভ্যাকসিনের পরীক্ষা কাজ দ্রুত করা শুরু হয়েছে। কোভিশিল্ড ভ্যাকসিনটি ১৭ টি কেন্দ্রে ১৬০০ জনের মধ্যে পরীক্ষা করা হচ্ছে। প্রতিটি কেন্দ্রের প্রায় ১০০ জনকে করোনার ভ্যাকসিন দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। অ্যাস্ট্রা জেনিকা (Astra Zeneca) নামের একটি সংস্থা থেকে এই ভ্যাকসিন তৈরির সত্ত্বা কিনেছে সিরাম ইনস্টিটিউট । এর ফলে, ভারত এবং ৯২ টি দেশে এই করোনার টিকা বিক্রি করতে সক্ষম হবে সিরাম ইনস্টিটিউট ।

▪️কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে ইঙ্গিত পাওয়া গিয়েছে যে, সরকার সরাসরি সিরাম ইনস্টিটিউট থেকে কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন কিনে নেবে এবং প্রত্যেক ভারতীয়কে বিনামূল্যে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। জানা গিয়েছে, ২০২২ সালের জুনের মধ্যে কেন্দ্রীয় সরকার সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে ৬৮ কোটি করোনার ভ্যাকসিন কিনবে। সরকারের পরিকল্পনা, অন্যান্য জাতীয় টিকাদান মিশনের মতো এটিও সারা দেশে চালানো হবে।

▪️সরকারি এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েও একটি প্রশ্ন জোরাল ভাবে উঠছে৷ তা হল, কীভাবে দেশের ১৩০ কোটি মানুষের জন্য পার্যাপ্ত হবে ৬৮ কোটি টিকা? তবে জানানো হয়েছে যে, এ নিয়ে সরকারের আলাদা পরিকল্পনা রয়েছে। সিরাম ইনস্টিটিউটের কোভিশিল্ড ছাড়াও আইসিএমআর এবং ভারত বায়োটেকের উদ্যোগে তৈরি কোভ্যাক্সিন এবং জাইকোভি-ডি ( ZyCoV-D) উপর নির্ভর করা হবে।

▪️সিরাম ইনস্টিটিউটের পরিকল্পনা অনুযায়ী, যদি সময়মতো পরীক্ষা শেষ হয়, তবে প্রতি মাসে ৬ কোটি করোনার ভ্যাকসিন তৈরি করবে তারা। যা ২০২১ এপ্রিলের মধ্যে বাড়িয়ে ১০ কোটি করা হবে।

Most Popular

TODAY'S TOP NEWS